২৩শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সকাল ৯:১৩

মাস্কের দাম সাড়ে ৪ লাখ টাকা

হরেক রকম ডেস্ক (কৃষি কণ্ঠ অনলাইন সংস্করণ) ।। বিশ্বব্যাপী মানুষের এখন অন্যতম প্রয়োজনীয় জিনিস মাস্ক। করোনাভাইরাসের কারণে অন্ন-বস্ত্রের মতো মাস্ক এখন নিত্যদিনের অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মাস্কের এই প্রয়োজন মেটাতে ব্যবসায়ীরা মাস্কের নিত্যনতুন ডিডাজাইন নিয়ে আসছেন। মাস্কের নকশায় ভিন্নতা আনছে কোম্পানিগুলো। ‌মাস্ক ব্যবহার যেহেতু দীর্ঘমেয়াদি হচ্ছে তাই ব্যবহারকারীরাও এখন আকর্ষণীয় ও সুন্দর মাস্ক খুঁজছেন।

মাস্কে ভিন্নতা আনতে প্রচলিত কোম্পানির সঙ্গে পাল্লা দিতে মাঠে নেমেছে জুয়েলারি দোকানগুলোও। তারা মাস্ক তৈরিতে সোনা, রূপা, হীরাসহ দামি পাথর পর্যন্ত ব্যবহার করছেন। এতে করে একদিকে মাস্কগুলো যেমন দৃষ্টিনন্দন হচ্ছে, তেমনি লাফিয়ে লাফিয়ে তার দামও বাড়ছে।

কিছুদিন আগে ভারতের পুনের এক ব্যক্তি সোনার মাস্ক পরে সবাইকে চমকে দেন। শঙ্কর কারাডে নামের ওই ব্যক্তির সোনার মাস্কের দাম পড়েছে তিন লাখ রুপির বেশি।

এবার শঙ্করের মাস্ককে টেক্কা দিতে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেছে ভারতের গুজরাটের একটি জুয়েলারি দোকান। তারা হীরা বসানো মাস্ক তৈরি করছেন। মাস্ক তৈরিতে দুই ধরণের হীরা ব্যবহার করছেন। প্রতিটি মাস্কের দাম ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭০ হাজার থেকে ৪ লাখ ৫২ হাজার টাকা।

ওই দোকানের মালিক দীপক চোকসি ওরিশা পোস্টকে জানান, কয়েকদিন আগে তার দোকানে এক ক্রেতা এসে বর-কনের জন্যে অভিনব মাস্ক তৈরি করে দেওয়ার কথা বলেন। এরপর এই মাস্ক তৈরি শুরু করেন। মাস্ক তৈরির পর ওই ক্রেতা দুটি মাস্ক নিয়ে যান। তবে ক্রেতার আপত্তির কারণে ওই দুটি মাস্কের দাম প্রকাশ করা হয়নি।

পরবর্তীতে এ ধরণের আরো মাস্ক তৈরির পরিকল্পনা আছে বলে ওরিশা পোস্টকে জানিয়েছেন দীপক। কারণ লকডাউন পুরোপুরি তুলে দিলে সামনের দিনে এই ধরণের মাস্কের চাহিদা বাড়বে বলে মনে করেন তিনি।

যথাযত স্বাস্থ্যবিধি মেনে এই মাস্ক তৈরি হচ্ছে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে দীপক জানান, মাস্কগুলো হীরার তৈরি হলেও সরকারি নির্দেশনা মেনেই তৈরি করা হয়েছে। এর মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ সম্ভব বলে জানান তিনি। এখন দেখার বিষয় ক্রেতা সাধারণের মাঝে কতটা সাড়া ফেলে সাড়ে ৪ লাখ টাকার এই মাস্ক।

( সম্পাদনায়:অনলাইন নিউজরুম এডিটর )

%d bloggers like this: