২৮শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:৫৯

‘মাস্ক পরায় বাধ্য করতে যে কোনো সময় অভিযান’

ঢাকা অফিস (কৃষি কণ্ঠ অনলাইন সংস্করণ) ।। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে জনগণকে মাস্ক পরায় বাধ্য করতে কঠোর অ্যাকশনে যাচ্ছে সরকার। মাস্ক পরছে কিনা যাচাই করতে শপিংমল ও মার্কেটে যে কোনো সময় অভিযান পরিচালনা করা হবে।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার ভার্চুয়াল বৈঠক শেষে দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ কথা বলেন।

করোনার এ সময়ে প্রত্যেক মানুষের মাস্ক ব্যবহার করা উচিত বলে মন্তব্য করে সচিব বলেন, ‘সবাই ঠিকভাবে মাস্ক যদি ব্যবহার না করি, তাহলে কিন্তু মুশকিল। কারণ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, “দুই তরফ থেকে যদি মাস্ক পরা থাকে, তাহলে ৯৫ থেকে ৯৮ শতাংশ নিরাপদ। আর এক তরফ থেকে মাস্ক থাকলে ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ নিরাপদ।” মাস্ক যদি না পরে তাহলে কিন্তু কোনো কিছুই সফল হবে না। এজন্য সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। ঠান্ডা থেকে প্রোটেকশন নিতে হবে। উপসর্গ দেখা গেলে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।’

উদাহরণ দিয়ে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘সম্প্রতি একটি কাজে এক মার্কেটে গিয়েছিলাম, আমি সেখানে বেশি লোককে মাস্ক পরতে দেখিনি। পরে আমরা নির্দেশনা দিয়েছি- আমরা ক্রস চেক করব যেকোনো দিন, সেই মার্কেটে যদি সবাইকে মাস্ক পরা না দেখি তাহলে ইউ উইল টেক অ্যাকশন।’

সচিব বলেন, মাস্ক পরায় অনীহা দেখা দেয়ার প্রেক্ষাপটে মার্কেট ও শপিং মলগুলোতে অ্যাকশনে যাচ্ছে সরকার। মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে আকস্মিক অভিযান পরিচালিত হবে ওইসব স্থানে।

‘ধর্ম মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সব মসজিদে জোহর ও মাগরিবের নামাজের সময় যেন ঘোষণা দেওয়া হয়, মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক, এটা রাষ্ট্রীয় কল্যাণকর নির্দেশনা’, জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে অভিযান অব্যাহত আছে। মোবাইলও কোর্ট চলছে।

করোনার দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হলে সরকার আগের মতো আবার শাটডাউনে যাবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ‘এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না, মাত্রাটা কেমন হবে আমরা তো জানি না। তবে আমাদের প্রস্তুতি রাখতে হবে।’

 

( সম্পাদনায়:অনলাইন নিউজরুম এডিটর )

%d bloggers like this: