২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সকাল ১০:২১

করোনা গবেষণায় নতুন পথ দেখাবে কৃত্রিম ফুসফুস

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক (কৃষি কণ্ঠ অনলাইন সংস্করণ) ।। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, করোনাভাইরাসের আক্রমণে মানবদেহে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফুসফুস। কিন্তু কীভাবে এই ক্ষতি হয় তা জানার জন্য গবেষণাগারে কৃত্রিম ফুসফুস তৈরি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনের ন্যাশনাল ইমার্জিং ইনফেকটিয়াস ডিজিস ল্যাবরেটরির (এনইআইডিএল) বিজ্ঞানীরা।

একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের ফুসফুস যেভাবে কাজ করে এই কৃত্রিম ফুসফুসও ঠিক তেমনভাবে তৈরি করা হয়েছে। ফলে করোনাভাইরাস কীভাবে ফুসফুসের টিস্যুগুলোতে আক্রমণ করে তা পর্যবেক্ষণ করতে সহায়তা করবে গবেষণাগারে তৈরি প্রাপ্তবয়স্ক ফুসফুসের এই মডেল। আর তা সম্ভব হবে কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তিদের ফুসফুস ব্যবচ্ছেদ বা বায়োপসি না করেই।

এনইআইডিএলের সিনিয়র গবেষক অ্যাডাম হিউম বলেন, ‘আমাদের তৈরি কৃত্রিম ফুসফুস বিশেষভাবে কার্যকর পরীক্ষামূলক মডেল। এটি মানবদেহের প্রকৃত ফুসফুসের কোষগুলোর সঙ্গে খুবই সাদৃশ্যপূর্ণ। ফলে এই মডেলের সাহায্যে আমরা ফুসফুসে কী চলছে তা সম্পর্কে আরো ভালো ধারণা পেতে সক্ষম হয়েছি, যা সংক্রমণের প্রধান টার্গেট।’

বোস্টনের রিজেনারেটিভ মেডিসিন সেন্টারের গবেষকদের সহায়তায় প্রকৃত ফুসফুসের অনুরূপ এই ফুসফুস তৈরি করা হয়। হিউম ও তার সহকর্মীরা এর সাহায্যে ফুসফুসের কোষের মধ্যে ভাইরাসটি কত দ্রুত বৃদ্ধি পায়, নির্দিষ্ট রোগীদের কেন গুরুতর লক্ষণগুলোর বিকাশ ঘটে তা নির্ধারণ এবং কোষগুলো কীভাবে এই সংক্রমণের প্রতিক্রিয়া দেখায় তা খুঁজে বের করার ব্যাপারে আশাবাদী।

কিছু কোভিড-১৯ রোগী দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠে, অন্যরা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং তাদের শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন পড়ে। বিজ্ঞানীরা এখনো জানেন না যে, এই ভাইরাস কী কারণে গুরুতর রোগের জন্য কাউকে সংবেদনশীল করে তোলে। হিউম আশা করছেন, এই গবেষণা তা জানতে সাহায্য করবে।

তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে এটি ফুসফুসে সংক্রমণ দেখার জন্য কেবল একটি মডেল সিস্টেম। কিন্তু পরবর্তী সময়ে এই কৃত্রিম ফুসফুসের মাধ্যমেই করোনা নিরাময়ের নির্দিষ্ট ওষুধের কার্যকারিতা পরীক্ষা করে দেখা হবে।’

( সম্পাদনায়:অনলাইন নিউজরুম এডিটর )

%d bloggers like this: