১০ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:০৬

সেনজেন ভিসা পাচ্ছে না বাংলাদেশ

ঢাকা অফিস (কৃষি কণ্ঠ অনলাইন সংস্করণ) ।। ইউরোপের সেনজেন ভিসা পাবে এমন ৫৪টি দেশের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। তবে তালিকায় বাংলাদেশের নাম নেই। ফলে বাংলাদেশের নাগরিকরা আপাতত বিশেষ এই ভিসা পাবেন না।

রোববার (২৮ জুন) প্রকাশিত তালিকায় থাকা দেশগুলো হলো- অস্ট্রেলিয়া, আলজেরিয়া, অ্যান্ডোরা, আলবেনিয়া, অ্যাঙ্গোলা, বাহামাস, ভুটান, নামিবিয়া, বসনিয়া এবং হার্জেগোভিনা, কানাডা, চীন, কোস্টারিকা, কিউবা, উত্তর কোরিয়া, ডোমিনিকা, মিশর, ইথিউপিয়া, জর্জিয়া, গায়ানা, ইন্দোনেশিয়া, জ্যামাইকা, কাজাখস্তান, লেবানন, মরিশাস, ভিয়েতনাম, মোনাকো, মঙ্গোলিয়া, মন্টিনিগ্রো, ভেনেজুয়েলা, মরোক্কো, মোজাম্বিক, নিউজিল্যান্ড, জাম্বিয়া, নিকারাগুয়া, পালাউ, রুয়ান্ডা, সেন্ট লুসিয়া, সার্বিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, তাজিকিস্তান, লেবানন, জাপান, থাইল্যান্ড, তিউনিসিয়া, তুরস্ক, উগান্ডা, তুর্কমেনিস্তান, প্যারাগুয়ে, কসোভা, ইউক্রেন, উরুগুয়ে, ভ্যাটিকান সিটি ও মিয়ানমার ও ভারত।

করোনা পরিস্থিতির উন্নয়ন হওয়ায় ইউরোপ সেনজেন ভিসা সুবিধা ফের চালু করছে। আগামী ১ জুলাই থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোর সীমান্ত খুলে দেওয়া হচ্ছে। তবে বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য এই সুযোগ আপাতত বন্ধ থাকছে।

করোনা পরিস্থিতির উন্নয়ন হলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ধীরে ধীরে অন্যান্য দেশের জন্যও সেনজেন ভিসা চালু করবে বলে জানা গেছে। কয়েক ধাপে এই ভিসা সুবিধা চালু হতে পারে।

ইউরোপীয় দেশগুলোকে নিয়ে একটি একীভূত অঞ্চল তৈরি করে দেশগুলোর মধ্যে যাতায়াত সহজ করা লক্ষ্য নিয়ে ১৯৮৫ সালে লুক্সেমবার্গের সেনজেন শহরে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ। বলা যায় সেই চুক্তির ধারাবাহিকতাতেই সৃষ্টি হয় সেনজেন এলাকা এবং সেনজেন ভিসা। ইউরোপের অধিকাংশ এলাকা এই সেনজেন অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত এবং কেবল সেনজেন ভিসা নিয়েই ৯০ দিনের জন্য বেড়ানো বা ব্যবসা সংক্রান্ত প্রয়োজনে ইউরোপ ঘুরে আসা যায়।

( সম্পাদনায়:অনলাইন নিউজরুম এডিটর )

%d bloggers like this: